আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে টেকনাফবাসীর কাছে নৌকা মার্কায় ভোট চাইলেন এমপি (বদি)

37

টেকনাফ প্রতিনিধিঃ আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে টেকনাফবাসীর কাছে নৌকা মার্কায় ভোট চাইলেন উখিয়া টেকনাফের দুই দুই বারের জনপ্রিয় সংসদ সদস্য ও গরীব দুঃখি মেহনতি মানুষের পরম বন্ধু আলহাজ্ব আব্দুর রহমান (বদি) এমপি। ঐতিয্যবাহি টেকনাফ মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে বুধবার (১২ ডিসেম্বর) বিকেলে বাংলাদেশ আওয়ামী-যুবলীগ ও ছাত্রলীগ টেকনাফ উপজেলা শাখার যৌথ উদ্যোগে উখিয়া-টেকনাফ কক্সবাজার-৪ আসনের সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী শাহীন আকতার চৌধুরীর সমর্থনে নৌকার বিজয় সু-নিশ্চিত করার লক্ষে আয়োজিত এক বিশাল কর্মী সমাবেশ জনসমুদ্রে পরিণত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি আব্দুর রহমান বদি এসব কথা বলেন।এমপি বদি আরো বলেন, আসন্ন নির্বাচনে যুদ্ধাপরাধীদের দোসর, অগ্নিসংযোগ ও সন্ত্রাস সৃষ্টিকারীদের প্রার্থী করেছে। নৌকায় ভোট দিয়ে তাদের উপযুক্ত জবাব দিতে হবে। নৌকাকে বিজয়ী করতে না পারলে তারা ক্ষমতায় গিয়ে দেশকে ধ্বংস করে দেবে। মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলবে। যাতে কেউ এমন ছিনিমিনি খেলতে না পারে সেজন্য আপনাদের কাছে নৌকা মার্কায় ভোট চাই।‘দেশকে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত করতে চাই, ‘কখনও পিছু হটিনি। আমার লক্ষ্য একটাই গরীব মানুষের জন্য কাজ করা। আমি চাই গরীবের ঘরে ঘরে স্বাধীনতার সুফল পৌঁছে দিতে।তিনি আরও বলেন- আগামী ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে আ’লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শাহীন আক্তারকে জয় যুক্ত করে উখিয়া-টেকনাফের এই লক্ষী আসনটি জননেত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিয়ে আওয়ামী লীগকে তৃতীয়বারের মতো ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত করতে হবে।কর্মী সমাবেশে উপস্থিত ছাত্রলীগ ও যুবলীগের হাজার হাজার নেতাকর্মীকে মান-অভিমান ও ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে আ’লীগের প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করতে জনগণের দুয়ারে দুয়ারে নৌকা প্রতীকে ভোট চাওয়ার আহবান করেন।তিনি আরো বলেন, মামলার জটিলতার কারণে জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে মনোনয়ন দিতে পারেন নি, তবে জনগণের ভালোবাসা ও জনপ্রিয়তার কারণে নেত্রী আমার সহধর্মিণী শাহীন আক্তারকে নৌকা প্রতীক দিয়ে উখিয়া-টেকনাফ আসনে পাঠিয়েছেন। এই নৌকা প্রতীক শাহিন চৌধুরীর একা নয়, এই নৌকা যুবলীগ-ছাত্রলীগের। কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনের আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ও আলোচিত সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আব্দুর রহমান বদি’র সহধর্মিনী শাহীন আক্তার চৌধুরী বলেন- টানা দুই মেয়াদে আ’লীগ সরকারের আমলে উখিয়া-টেকনাফে প্রচুর উন্নয়ন হয়েছে। এই অঞ্চলের মানুষ উন্নয়ন চাই, তাই তারা নৌকায় ভোট দিয়ে এই লক্ষী আসনটি জননেত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিয়ে আ’লীগকে আবারও ক্ষমতায় বসাবেন।বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- জেলা যুবলীগের সভাপতি সোহেল আহমদ বাহাদুর, সাঃ সম্পাদক শহিদুল হক সোহেল, সাবেক সহ সভাপতি আবুল কালাম, সাবেক তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক নজির আহমদ সীমান্ত, কক্সবাজার শহর যুবলীগের আহবায়ক শোয়াইব ইফতেকার।এসময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- টেকনাফ উপজেলা যুবলীগের সহ সভাপতি জিয়াউর রহমান জিয়া, যুগ্ম সাঃ সম্পাদক ফজলুল কবির, পৌর যুবলীগের আহবায়ক তোয়াক্কুল হোসেন চৌধুরী, পৌর যুবলীগের যুগ্ন আহব্বায়ক সাবেক ছাত্রনেতা মোহাম্মদ আবদুল্লাহ্ যুগ্ন আহব্বায়ক ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হোসাইন আহম্মদ। টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ,সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আবদুল ফারুক, বাহারছড়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন, সাঃ সম্পাদক আমজাদ হোসেন খোকন, হোয়াইক্যং ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ফরিদুল আলম জুয়েল, হ্নীলা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নুরুল আলম নুরু, সাবরাং ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি হুমায়ুন কবির, শাহপরীর দ্বীপ সাংগঠনিক ইউনিয়নের সাঃ সম্পাদক মোঃ আমিন, টেকনাফ সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।উল্লেখ্য যে, দীর্ঘদিন ধরে এমপি বদি’র সঙ্গে টেকনাফ উপজেলা যুবলীগ ও ছাত্রলীগের মধ্যে এক অদৃশ্য ভুল বুঝাবুঝি ও মান-অভিমান ছিল।গতকালকের বিশাল কর্মী সমাবেশের মাধ্যমে সাংসদ বদির সঙ্গে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের ভুল বুঝাবুঝি ও মান-অভিমানের অবসান হল। এসময় জেলা যুবলীগের সভাপতি সোহেল আহমদ বাহাদুর ও সাঃ সম্পাদক শহিদুল হক সোহেল টেকনাফ উপজেলা যুবলীগের সভাপতি নুরুল আলমকে এমপি বদি’র হাতে তোলে দেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here