‘ইয়াবা ব্যবসা করেন নাই’ ঘরে বসে’বসে ইয়াবার ঝোল খেয়েছেন তারাও বাঁচতে পারবেন না- সাবেক এমপি বদি

887

মোঃ আলমগীর,টেকনাফ ::  মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কঠোর নির্দেশনা অনুযায়ী মাদকপাচার প্রতিরোধে টেকনাফ উপজেলায় দায়িত্বে থাকা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা কাজ করে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন কক্সবাজার-৪ উখিয়া-টেকনাফ আসনের নবম ও দশম জাতীয় সংসদের জনপ্রিয় সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান (বদি) সিআইপি তিনি বলেন, মাদক নিয়ে সরকারের জিরো টলারেন্স নীতির মধ্যে যদি আমার ভাই, আমার ছেলেও অভিযুক্ত হয় তাদেরকেও আইনের আওয়তাই এনে শাস্তি প্রদান করুন। ১০ জুন সোমবার সকাল ১১ টায় টেকনাফ পৌরসভা চত্বরে মেয়র শিক্ষাবৃত্তির পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে এ সব কথা বলেন সাবেক এমপি বদি।

এসময় সাবেক এমপি বদি বলেন,টেকনাফ উপজেলার পিছিয়ে পড়া শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষাবৃত্তির আয়োজন করায় মেয়র মহোদয়কে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।  সেই সাথে আমি আশা প্রকাশ করি এই শিক্ষাবৃত্তির মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা উৎসাহিত হবে এবং বাংলাদেশের যে কোন জেলার শিক্ষার্থীদের সাথে প্রতিযোগিতায় টিকতে পারবে। তিনি মাদকের বিরুদ্ধে তার কঠোর অবস্থান প্রসঙ্গে বলেন,  নবম এবং দশম জাতীয় সংসদে আমি বলেছিলাম মাদকের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবং মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কক্সবাজারে এমন এক পুলিশ সুপার দিয়েছেন যার নেতৃত্বে এবং সাহসী অফিসার ইনচার্জ ওসি প্রদীপ কুমার দাশ এর কঠোর অবস্থানে মাদক ব্যবসায়ীরা  আজ ধরাশায়ী।  তিনি আরো বলেন দুই দুই বার জাতীয় সংসদ সদস্য থাকাকালে কোন দিন মাদক সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে টেকনাফ থানার অফিসার ইনচার্জকে কখনো ফোন করেনি কারণ আমরাই মিলেমিশে মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছি।  তিনি আরো বলেন মাদক ব্যবসায়ী যদি আমার পরিবারের কেউ হয় তার সাথে ও অন্য মাদক ব্যবসায়ীর মতো আচরণ করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আমি নির্দেশ দিয়েছি কারণ আমি সরকারের কাছে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। তিনি বলেন মাদক নির্মূলে আমরা প্রতিটি ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে মাদক নির্মূল কমিটি গঠন করে দিয়েছি এ পর্যন্ত বন্দুক যুদ্ধে যারা নিহত হয়েছেন সকলেই প্রকৃত মাদক ব্যবসায়ী কোন নিরপরাধ ব্যক্তি বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়নি বা মিথ্যা মামলায় জড়ানো হয়নি। তিনি পুলিশ প্রশাসনকে বলেন ইয়াবা ব্যবসা করে নি কিন্তু ইয়াবা ব্যবসায়ীদের কে বিভিন্ন ভাবে পৃষ্ঠপোষকতা করেছেন তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করেছেন তাদের সাথে ও ইয়াবা ব্যবসায়ীর মত আচরন করার জন্য তিনি অনুরোধ জানিয়েছেন। সাবেক এই এমপি বদি আরো বলেন, ‘মাদকবিরোধী চলমান যুদ্ধে এই পর্যন্ত অনেক মাদক কারবারি নিহত হয়েছে।’ টেকনাফ উপজেলাকে মাদকমুক্ত করার জন্য যা যা করা দরকার তা করার জন্য পুলিশ সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। পাশাপাশি কোনো নিরীহ মানুষ যেন হয়রানির শিকার না হয় সেই দিকটা লক্ষ্য রাখার অনুরোধ জানান। অনুষ্ঠানে বদি বলেন, ‘শিক্ষা থেকে অনেক পিছিয়ে থাকা টেকনাফ উপজেলা এখন শিক্ষার মান উন্নয়নে সফলতা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে সামনের দিকে। সেই ধারাবাহিকতার অংশ হিসাবে টেকনাফ পৌরসভার অর্থায়নে মেয়র শিক্ষা বৃত্তির মাধ্যমে প্রতি বছর মেধাবী শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হচ্ছে শিক্ষা ক্ষেত্রে প্রতিযোগিতা। এতে টেকনাফ উপজেলার শিক্ষার মান দিন দিন বৃদ্ধি পাবে।’ মেধা বিকাশের জন্য এই উদ্যোগটি অত্র পৌরসভার শিক্ষার্থীদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে তিনি মত প্রকাশ করেন। টেকনাফ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলম বাহাদুরের পরিচালনায় ও পৌর মেয়র হাজ্বী মোহাম্মদ ইসলামের সভাপতিত্বে এ সময় উপস্থিত ছিলেন- টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক সাংসদ অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী, টেকনাফ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আলম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ রবিউল হাসান, টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ প্রদীপ কুমার দাশ, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ এমদাদ হোসেন, টেকনাফ পৌর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক বন্দর ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, টেকনাফ বাজার ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আলমগীর, পৌর সচিব মোহাম্মদ মহিউদ্দিন ফয়েজী, ইঞ্জিনিয়ার জহির উদ্দিন, ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এহতেশামুল হক বাহাদুর, ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবু হারেছ, ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হোছন আহম্মদ, ৬নং ওয়ার্ড ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল্লাহ মনির, (৭-৯)নং ওয়ার্ড মহিলা কাউন্সিলর নাজমা আলম, (৪-৬)নং ওয়ার্ড মহিলা কাউন্সিলর দিলরুবা খানম এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে আগত শিক্ষক শিক্ষিকা বৃন্দ প্রমুখ। অনুষ্ঠান শেষে বৃত্তিপ্রাপ্ত ১৭ জন শিক্ষার্থীদের ক্রেস্ট, নগদ টাকা, বৃত্তির সনদ, স্কুল ব্যাগসহ বিভিন্ন প্রকার শিক্ষা সামগ্রী তুলে দেওয়া হয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here