মোবাইল নেটওয়ার্ক নিয়ে চরম দুর্ভোগে স্থানীয় উখিয়া টেকনাফ বাসী

15

সামি জাবেদ, টেকনাফ ::
রোহিঙ্গাদের মোবাইল ব্যবহার বন্ধের কারণে যে নেটওয়ার্ক  সচরাচর বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে তা সরাসরি স্থানীয়দের উপর যোগাযোগের বড় ধরণের বাঁধার সম্মুখীন হচ্ছে। মোবাইল নেটওয়ার্ক শুধুই রোহিঙ্গাদের জন্য বন্ধ করা হলেও কিন্তু তার প্রভাব পড়েছে স্থানীয়দের উপর। বিগত কয়েকদিন যাবত উখিয়া-টেকনাফে মোবাইল নেটওয়ার্ক নিয়ে নানান সমস্যাই পড়ছেন টেকনাফ উখিয়ার জনসাধারণ মানুষ। টেকনাফ একটি বাণিজ্য এলাকা,এই এলাকাই অনেক ব্যবসায়ী রয়েছে ,তারা বর্তমানে মোবাইল নেটওয়ার্ক নিয়ে তাদের যোগাযোগ প্রায় বিচ্ছন্ন ! মোবাইলে তিন সেকেন্ডের কথাও ঠিকমতো বলা যাচ্ছে না। টেকনাফে প্রায় জায়গাই কল ও যাচ্ছে না! টেকনাফে স্থলবন্দর থাকায় মোবাইল নেটওয়ার্কের কারনে ব্যবসায়ীরা প্রতিনীয়ত হিমশিমে পড়ছে। তারা মোবাইলে নেটওয়ার্ক না থাকায় একজন অন্যজনের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হচ্ছে! যার কারণে সরকারী রাজস্ব হ্রাস পাবে। তাছাড়া স্থানীয়দের কথা হচ্ছে তারা আমরা সবাই উখিয়া-টেকনাফের মানুষ বর্তমানে মোবাইল নেটওয়ার্কের কারণে চরম ধূর্ভুগে রয়েছে! স্থানীয়রা সরকারের প্রতি এই মোবাইল নেটওয়ার্ক চালু রাখার প্রস্তাব জানাচ্ছেন! স্থানীয়রা জানিয়েছে যে প্রথমত রোহিঙ্গাদের সবাইকে আমাদের উখিয়া-টেকনাফে স্থান দেওয়া হয়েছে,যার কারণে বিভিন্ন সমস্যাই প্রতিনিয়ত সিকার হচ্ছে উখিয়া টেকনাফের সাধারণ মানুষ। রোহিঙ্গারা বর্তমানে মাদক পাচার,মানবপাচার,চুরি,ডাকাতি,খুন ইত্যাদি অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে স্থানীয়দের উপর দিয়ে,তাদের কারণে যানবাহন বৃদ্ধী পেয়েছে,যার কারণে রাস্তাঘাটের বেহাল দসা! রোহিঙ্গাদের কারণে আজকাল উখিয়া টেকনাফের মানুষদের আইডি কার্ড গলাই জুলিয়ে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যেতে হয়! পরিচয়পত্র না থাকলে সেনাবাহিনী,পুলিশ,বিজিবি’র চেকপোস্ট পার হতে দেই না! আজ তাদের মোবাইল সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার কারণে নেটওয়ার্ক দূর্বল করে দেওয়া হয়েছে …তার প্রভাব ও পড়েছে স্থানীয়দের উপর ! স্থানীয়দের দাবি যে রোহিঙ্গাদের সব মোবাইল নিয়ে নেয়া হলে আর নেটওয়ার্ক বন্ধের প্রয়োজন নেই …যদি তা সম্ভব নাও হই স্থানীয়দের মোবাইল নেটওয়ার্ক আগের মতো চালু রাখার প্রস্তাব করেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here