সম্মানীর টাকা অসহায়দের বিলিয়ে দেনঃ- মেয়র ইসলাম

139

 

মোঃ আলমগীর টেকনাফঃ-
মাসে ৩০ হাজার টাকা সম্মানী’বাতা টেকনাফ পৌরসভার মেয়র হাজ্বী মোহাম্মদ ইসলামের। কিন্তু সেই টাকা ছুঁয়েও দেখেন না তিনি। বয়স্ক নারী পুরুষ,এবং অটিজম স্কুল, মেডিকেল, মাদ্রাসার শিক্ষক, স্কুলের শিক্ষক অসহায় শিক্ষার্থী আর অসুস্থ রোগীদের মধ্যে সম্মানীর সেই টাকা বিলিয়ে দেন।

টেকঝঘননাফ পৌরসভার সূত্রে জানা গেছে, মেয়রের সম্মানীর টাকা পৌরসভার হিসাব বিভাগের একজন কর্মকর্তার অধীনে বিতরণ করা হয়। কিছু শিক্ষার্থী কিছু স্কুল-মাদ্রাসার শিক্ষক আছেন যারা প্রতি মাসে নির্ধারিত অঙ্কের টাকা পেয়ে থাকেন। এ তালিকায় আছেন শিক্ষার্থী, মাদ্রাসার শিক্ষক, স্কুলের শিক্ষক,কারও অপারেশন হবে। কারও ওষুধপথ্য কেনার আর্থিক সংগতি নেই।

টেকনাফ পৌরসভার সচিব মো.মহিউদ্দিন ফয়েজী প্রতিবেদক কে জানান,পৌর মেয়র নিজের সম্মানীর বাতার টাকা অসহায়-দুস্থদের বিলিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি তিনি পৌরসভার যত রকমের বাতা আছে কোন বাতা নেয় না, এবং যত ধরনের মাসিক বাতা সকল টাকা গরীব দুঃখি মানুষ কে বিলিয়ে দেন।

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, শুধু যে মাসিক সম্মানী বিলিয়ে দেন তা নয়। অনেক সময় অসহায় মানুষের দুঃখ,কষ্টের কথা শুনে নিজের পকেটের টাকাও দিয়ে দেন। আমাদেরও বলেন সাহায্য করার জন্য। কেউ ফেরে না খালি হাতে-এটা মেয়রের ক্ষেত্রেই খাটে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে টেকনাফ পৌরসভার মেয়র হাজ্বী মোহাম্মদ ইসলাম প্রতিবেদক’কে জানান, আমি রাজনীতি করছি পৌরবাসীর কল্যাণের জন্য। কিছু পাওয়ার জন্য মেয়র হইনি, দেওয়ার জন্য এসেছি। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, রাজনীতি হচ্ছে ত্যাগ স্বীকারের জন্য। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন আমাকে অনেক দিয়েছেন। টেকনাফ পৌরসভার অসহায়,‍গরীব দুঃখি কিছু মানুষ, কিছু স্কুল মাদ্রাসার ছাত্র, কিছু স্কুল-মাদ্রাসার শিক্ষক, বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের কল্যাণে নিয়োজিত আমার সম্মানীর টাকা ব্যয় হচ্ছে এটা আমার জন্য আনন্দের। আমি সততা,স্বচ্ছতা ও জবাবদিহির ভেতর থেকেই দায়িত্ব পালন করতে চাই। এবং আল্লাহ্ রাব্বুল আলামিন আমাকে যতদিন পৌরসভার মেয়রের দায়িত্ব রাখবে ততদিন আমার সম্মানী টাকা তাদের কাছে বিলীন করে দেব।

সেই সাথে আমি স্মরণ করি হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’কে এবং বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা মাদার অফ হিউম্যানিটি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা’কে এবং কক্সবাজার-৪ উখিয়া-টেকনাফ আসনের নবম ও দশম জাতীয় সংসদের জনপ্রিয় সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আব্দুর রহমান বদি সিআইপি,এবং বর্তমান সংসদ সদস্য শাহীন আক্তার বদি এমপি’কে ধন্যবাদ জানায়,কারণ তাদের সহযোগিতার কারণে আমি পৌরবাসীর সেবা করার সুযোগ পেয়েছি।

তিনি আরো বলেন, আমি মনে করি যেসব শিক্ষার্থী, শিক্ষক, সাহায্য পাচ্ছে তারা একদিন সমাজে প্রতিষ্ঠিত হবে। নিজের পায়ে দাঁড়াবে। তখন তারাও কৃতজ্ঞতাবোধ থেকে পিছিয়ে পড়া মানুষের জন্য অবদান রাখবে। অন্যদের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়াবে।

সমাজের বিত্তবানদের অসহায়,দুস্থদের কল্যাণে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান টেকনাফ পৌর মেয়র হাজ্বী মোহাম্মদ ইসলাম।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here